শুক্রবার , ২৬ আগস্ট ২০২২ | ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. উপ-সম্পাদকীয়
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি
  9. জাতীয়
  10. জীবনযাপন
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশগ্রাম
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. নারী ও শিশু

কারওয়ান বাজার এলাকায় কারা, কীভাবে ছিনতাই করে

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
আগস্ট ২৬, ২০২২ ৮:২০ পূর্বাহ্ণ

সম্প্রতি কারওয়ান বাজার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারিশা আকতারে মুঠোফোন ছিনতাইয়ের পর তেজগাঁও থানা-পুলিশ ও ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) কারওয়ান বাজার কেন্দ্রিক ছিনতাইকারী চক্রের ২৭ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার চক্রের সদস্যরা ডিবিকে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, গত তিন মাসে কারওয়ান বাজার ও আশপাশ এলাকা থেকে অর্ধশতাধিক চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটিয়েছেন তাঁরা।

গত ৪ আগস্ট কারওয়ান বাজার অফিস থেকে বাসায় ফেরার পথে ফার্মগেট এলাকায় ছিনতাইয়ের শিকার হন দৈনিক ইত্তেফাকের বিশেষ প্রতিনিধি জামাল উদ্দিন। ছিনতাইকারীরা তাঁর হাত থেকে ব্যাগ ছিনিয়ে পালিয়ে যান। ব্যাগে নগদ সাত হাজার টাকা, একটি মুঠোফোন ও ব্যাংকের কার্ড ছিল।

জামাল উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘ফার্মগেটে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলাম। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ছিনতাই চক্রের সদস্যরা আমার হাতে থাকা ব্যাগটি ছিনিয়ে পালিয়ে যায়। ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা করেছি। ঘটনার এক সপ্তাহ পরও আমার ব্যাগ উদ্ধার ও জড়িত ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।’

কারওয়ান বাজার এলাকার একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ কারওয়ান বাজারে আসেন। বিপুল লোক সমাগম হওয়ায় এই এলাকায় প্রতিদিনই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। পুলিশ নির্দিষ্ট কয়েকটি স্থানে বসে টহল দেন। ব্যবসায়ীদের দাবি, ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা পুলিশের ওপর নজর রাখেন। যেখানে পুলিশের উপস্থিতি থাকে না, সেখানে ছিনতাই করেন তাঁরা। ছিনতাই বন্ধে পুলিশের নজরদারি বাড়ানোর দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

আরও পড়ুন

জবির সেই ছাত্রীর মুঠোফোন ছিনতাইকারীরা কারওয়ান বাজারে বিক্রি করেন

গত ২১ জুলাই তানজিল পরিবহনের বাসে করে ফেরার সময় কারওয়ান বাজার এলাকা থেকে পারিশার মুঠোফোন ছিনতাই হয়

পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা বলেন, চুরি ও ছিনতাইয়ের অধিকাংশ ঘটনায় ভুক্তভোগী থানায় মামলা করেন না। মামলা না করায় পুলিশ জানতে পারে না। ফলে জিনিসপত্রও উদ্ধার হয় না। তেজগাঁও থানা-পুলিশের একটি সূত্র জানায়, গত জুন মাসে তেজগাঁও এলাকায় ছিনতাইয়ের ঘটনায় মোট×৬টি মামলা হয়েছিল। আর জুলাই মাসে মামলা হয়েছে মাত্র একটি।

তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা কম হয়। তবে মুঠোফোন চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় প্রতি মাসে প্রায় অর্ধশতাধিক সাধারণ ডায়েরি হয়। মাসে ৪০টির মতো মুঠোফোন উদ্ধার করে ফিরিয়েও দেয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ডিএমপি সূত্র আরও জানায়, রাজধানীতে সবচেয়ে বেশি চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগে। ছিনতাইয়ের ঘটনায় সর্বাধিক মামলাও হয় এই বিভাগে।

আরও পড়ুন

ছিনতাইকারীকে একাই ধরে পেটালেন বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী

ছিনতাইকারীকে ধরার পর পুলিশ সদস্যের সঙ্গে কথা বলছেন বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী

ছিনতাইয়ে ২৫ ভাসমান শিশু

ডিবি সূত্র বলছে, কারওয়ান বাজার কেন্দ্রিক ছিনতাইয়ে তিনটি দল জড়িত। একটি দলের নেতৃত্ব দেন লোকমান হোসেন। তাঁর দলে ৬ থেকে ৭ জন সদস্য রয়েছে। গত ২৬ জুলাই লোকমান হোসেনসহ তাঁর চক্রের আটজনকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবির তেজগাঁও বিভাগ। আর দুটি দলের নেতৃত্ব দেন কালু ও আলমগীর হোসেন। ডিবি কালুসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তবে আলমগীর ও তাঁর চক্রের সদস্যরা এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন। তাঁদের সঙ্গে ভাসমান অন্তত ২৫টি শিশু রয়েছে। তারা তেজগাঁও এলাকার বিভিন্ন বস্তি ও রেললাইনের ওপর থাকা ট্রেনের বগিতে থাকে। ছিনতাইয়ে জড়িত এসব ভাসমান শিশুদের একটি তালিকা করেছে ডিবি।

এ প্রসঙ্গে ডিবির তেজগাঁও বিভাগের সহকারী কমিশনার হাসান মোহাম্মদ মুহতারিম প্রথম আলোকে বলেন, কারওয়ান বাজার কেন্দ্রিক ছিনতাই বন্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। কয়েকজনকে ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

লোকমান কারওয়ান বাজার এলাকায় গত ১২ বছর ধরে ছিনতাই করছেন বলে জানিয়েছে ডিবি। তিনি মূলত বিভিন্ন স্পটে দাঁড়িয়ে পুলিশের ওপর নজর রেখে তাঁর চক্রের সদস্যদের দিয়ে ছিনতাই করান। এই চক্রের সদস্যরা চুরি ও ছিনতাই ছাড়াও কারওয়ান বাজারে আসা পণ্যবাহী গাড়ি থেকে মালামাল ছিনতাই করেন। তাঁরা বেশির ভাগ সময় কারওয়ান বাজার ও এফডিসি এলাকায় ছিনতাই করেন।

ডিবি সূত্র আরও জানায়, আলমগীরের নেতৃত্বে ৭ থেকে ৮ জন কারওয়ান বাজার ও তেজগাঁও ট্রাক টার্মিনাল ও সাতরাস্তা মোড় এলাকায় ছিনতাই করেন। তাঁরা মূলত রিকশা ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার যাত্রীদের অস্ত্রের মুখে থামিয়ে নগদ টাকা, মুঠোফোন ও দামি জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেন।

কালুর নেতৃত্বে থাকা দলটি চুরি ও ছিনতাইয়ের বাইরে ডাকাতির সঙ্গেও জড়িত। তাঁরা কারওয়ান বাজার, ফার্মগেটসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় চুরি ও ছিনতাইয়ের পাশাপাশি পণ্যবাহী ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানে ডাকাতি করেন।

সর্বশেষ - দেশজুড়ে