বুধবার , ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. উপ-সম্পাদকীয়
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি
  9. জাতীয়
  10. জীবনযাপন
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশগ্রাম
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. নারী ও শিশু

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ছাত্রফ্রন্টের ওপর হামলার প্রতিবাদ

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২২ ৬:৫০ পূর্বাহ্ণ

রাজধানীর ফার্মগেটে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগ দিয়ে হামলার শিকারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট।

মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল হয়।

সমাবেশে বক্তারা জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় ছাত্র নিহতের প্রতিবাদে আন্দোলনে নামা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট। সেখান থেকে ফেরার পথে ফার্মগেট এলাকায় ছাত্রলীগ তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক শোভন রহমান, ঢাকা নগর শাখার দপ্তর সম্পাদক সোহাগি সামিয়া, স্কুল সম্পাদক বাঁধন ও বাড্ডার সংগঠক সাদ্দাম আহত হন।

সমাবেশে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি মুক্তা বাড়ুই বলেন, ২০১৮ সালের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের একটি কথা জনপ্রিয় হয়েছিল, ‘যদি তুমি ভয় পাও তবে তুমি শেষ, তুমি যদি রুখে দাড়াও তবেই তুমি বাংলাদেশ।’ এই রুখে দাঁড়ানোকে সংখ্যা দিয়ে আপনারা পরিমাপ করতে যাবেন না। এই রুখে দাঁড়ানো হচ্ছে নৈতিক রুখে দাঁড়ানো, আদর্শের রুখে দাঁড়ানো।

তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি প্রায়ই বলে থাকেন, ছাত্রলীগ নাকি ছাত্রছাত্রীদের আশা-আকাঙ্ক্ষার জায়গা। আমরা বলতে চাই বর্তমান ছাত্রলীগ সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিরোধিতার জায়গা। শিক্ষার্থীদের কোনো ন্যায্য অধিকারের আন্দোলনে তাদের পাওয়া যায়নি বরং শিক্ষার্থীদের সব ন্যায্য দাবির আন্দোলনে বাধা দিয়েছে ছাত্রলীগ।

জহুরুল হক হল ছাত্রলীগের হামলার শিকার হওয়ার প্রসঙ্গ টেনে মুক্তা বাড়ুই বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একক কোনো সংগঠনের জায়গা নয়। এখানে সব মত তাদের কথা বলবে। আপনারা যে পথ অবলম্বন করছেন তা আপনাদের জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করছে। এই জনবিচ্ছিন্ন অবস্থায় আপনারা খুব বেশিদিন টিকতে পারবেন না।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক শোভন রহমান বলেন, সড়কের ঘটনাগুলো দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু দুর্ঘটনা কাকে বলে? যখন সব কিছু স্বাভাবিকভাবে চলার পর কদাচিৎ কিছু ঘটনা ঘটে। কিন্তু প্রতিদিনই পত্রিকা খুললে দেখা যায় সড়কে ২০-৩০টি দুর্ঘটনার খবর। তখন আর এটাকে দুর্ঘটনা বলা যায় না।

তিনি আরও বলেন, পত্রিকায় রিপোর্ট এসেছে সড়কের গাড়ি কেনার জন্য, মেরামতের জন্য কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু আমরা রাস্তায় চড়ি ফিটনেসবিহীন গাড়িতে। তাহলে আমাদের কোটি টাকা কোথায় যায়? কার পকেটে যায়? এই সিন্ডিকেট বন্ধ করার উপায় সরকারের জানা নেই। কারণ এই সিন্ডিকেট, মাফিয়া, গডফাদারদের টাকায় সরকার নির্বাচন করে।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি রাজীব কান্তি রায় বলেন, আমরা ফার্মগেটের ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে আজ এখানে দাঁড়িয়েছি। একদিন সব অন্যায়ের বিচার হবে। ফার্মগেটে হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

 

সর্বশেষ - আইন-আদালত