শুক্রবার , ৯ জুন ২০২৩ | ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. উপ-সম্পাদকীয়
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. চাকরি
  9. জাতীয়
  10. জীবনযাপন
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দেশগ্রাম
  13. দেশজুড়ে
  14. ধর্ম
  15. নারী ও শিশু

যেভাবে সরাসরি রাজনীতি থেকে ইতি ঘটে সিরাজুল আলম খানের

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
জুন ৯, ২০২৩ ১:৪৩ অপরাহ্ণ

সিরাজুল আলম খান বাংলাদেশের রাজনীতির এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। জীবনের শেষ ৪০ বছর রাজনীতি থেকে দূরে থেকেও ছিলেন প্রাদপ্রদীপের আলোয়। তাকে নিয়ে আগ্রহ দেখাতেন প্রায় সবাই। সরাসরি রাজনীতি থেকে নিজেকে আড়াল করে রাখলেও আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হন এই তাত্ত্বিক।

দাদাভাই নামে পরিচিত বাংলাদেশেল রাজনীতির এই রহস্য পুরুষ আজ না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে সহযোদ্ধাদের মধ্যে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে সিরাজুল আলম খানের পরিচিতি ‘তাত্ত্বিক নেতা’ হিসেবে। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ।  আবার শেখ মুজিব সরকারের বিরুদ্ধে প্রথম বিরোধী দল হিসেবে জাসদ গড়ে তোলা এবং সর্বশেষ সেনাবাহিনীতে বিপ্লবী সৈনিক সংস্থা গঠনের মতো ইতিহাসের নানা টালমাটাল ঘটনাপ্রবাহের সাথেও উঠে আসে সিরাজুল আলম খানের নাম। রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক না রেখেও কিভাবে তিনিই হয়ে উঠেছিলেন রাজনীতির একজন নেপথ্য নিয়ন্ত্রকে।

পাকিস্তান বিরোধী সংগ্রাম থেকে শুরু করে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও বহু ঘটনার নেপথ্য নায়কদের একজন হয়েও নিজে কোনোদিন কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য হননি তিনি। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার সময় ছাত্রলীগের রাজনীতি করেন। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছিলেন। শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের হাত ধরে তার রাজনীতির হাতেখড়ি।

৬৬ থেকে ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের পর মূলত তিনিই ছিলেন ক্যাটালিস্ট। ৭০ এ জেল থেকে বেরিয়ে শেখ মুজিব জাতীয় নেতা হলেন তবে যে সাংগঠনিক বিস্তৃতি হলো তার মূল নায়ক ছিলেন সিরাজুল আলম খান। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে তার এক ধরণের বলয় তৈরি হয়েছিলো তাকে কেন্দ্র করে। তারা স্বাধীনতার কথাও বলতেন সমাজতন্ত্রের কথাও বলতেন। এ নিয়ে ছাত্রলীগের মধ্যে বিবাদ হয়। শেখ মুজিব সিরাজুল আলমসহ তার আস্থাভাজনদের নিয়ে বিএলএফ গঠন করেছিলেন যাতে আরও শেখ মনি, আব্দুর রাজ্জাক ও তোফায়েল আহমেদ।

পরবর্তীতে শেখ মনির সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরে ছাত্রলীগ থেকে বেরিয়ে গিয়ে জাসদ প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা রাখেন সিরাজুল। পরে সরকার পরিচালনা নিয়েও শেখ মুজিবর রহমানের সঙ্গে মতবিরোধ হয় তার। এর ফলে সিরাজুল আলম খান ও তার অনুসারীরাই একটা সময় হয়ে উঠেন দেশের প্রধান বিরোধী দল।

তবে নিজের কাজের স্মৃতিচারণ করে বলা একটি বইয়ে সিরাজুল আলম খান বলেছেন ছাত্র জীবনে ফিদেল কাস্ত্রোর কিউবার মুক্তি সংগ্রাম কিংবা আলজেরিয়া, ফিলিস্তিন বা ভিয়েতনামের সশস্ত্র মুক্তি সংগ্রাম তাকে আলোড়িত করেছিলো দারুণ ভাবে।

পনের আগস্টের রক্তাক্ত ঘটনার সময় ভারতে ছিলেন সিরাজুল আলম খান। আর জাসদ ও বিপ্লবী সৈনিক সংস্থার তৎপরতার অবসান হয় আরও পরে মূলত জিয়াউর রহমান ৭ নভেম্বর ক্ষমতার প্রাণকেন্দ্র চলে আসা ও ৭৬ সালে কর্নেল তাহেরের মৃত্যুদণ্ডের মধ্য দিয়ে।

ওই বছরেই ২৬ নভেম্বর আটক হয়ে পাঁচ বছর জেল খাটেন সিরাজুল আলম খান। ৮১ সালে ১ মে মুক্তি পেয়ে লন্ডন চলে যান রাজনীতির রহস্যপুরষ হিসেবে পরিচিত সিরাজুল আলম খান। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের রাজনীতির সঙ্গে তার সরাসরি জড়িত থাকার আনুষ্ঠানিক ইতি ঘটে সেখানেই।

আর এর মধ্যেই কয়েক খণ্ডে পরিণত হয় তার রাজনৈতিক চিন্তার সর্বশেষ ফসল জাসদ।

সবমিলিয়ে গত ৪০ বছর নিজেকে রাজনীতি থেকে আড়ালে রাখেন সিরাজুল। দীর্ঘদিন আমেরিকায় বসবাস করেন। সেখান থেকে দেশে আসলে রাজনৈতিক সহচররা তার কাছে বারবার গেছেন। কিন্তু তিনি রাজনীতিতে আর সক্রিয় হননি। রাজনীতি নিয়ে গণমাধ্যমে কোনো কথাও বলেননি।

 

সর্বশেষ - দেশজুড়ে

আপনার জন্য নির্বাচিত

চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার মুস্তাকিমের জন্য আইনজীবী নিয়োগ দিল জাতীয় মানবাধিকার কমিশন

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং গভীর রাতে বালুচরে আটকে থাকা নৌকা থেকে নবদম্পতিসহ ৩৭ বরযাত্রী উদ্ধার

ফয়জুল করীমের ওপর হামলার ঘটনায় অলি আহমদের নিন্দা

অমর নায়ক সালমান শাহ স্মরণে বিশেষ তথ্যচিত্র

কিশোরগঞ্জে বাস শ্রমিকদের দুপক্ষের সংঘর্ষ, আহত ১০

আলাদাভাবে এরশাদের জন্মদিন পালন করবেন রওশন-জিএম কাদের

মৌলভীবাজারে চোর সন্দেহে গণপিটুনিতে যুবকের মৃত্যু

ওয়াজ মাহফিলে বয়ানরত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু

দেশে ফিরতে চায় জাপানি মায়ের বড় মেয়ে

ডাচ্‌-বাংলার টাকা ছিনতাই তিনজন গানম্যান দিয়ে ৭ ব্যাংকে সেবা দেয় মানি প্ল্যান্ট লিংক